সরকার আওয়ামীলীগ, বাড়ি ছাড়া গফরগাঁওয়ের আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীরা !

বাংলা গার্ডিয়ান প্রতিবেদক

2,387

২০০১ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকায় ভোট দেওয়ার অপরাধে বিএনপি জামায়াতের সন্ত্রাসীরা কৃষক মোফাজ্জলের বসতঘর কেটে পুকুর খনন করেছিল। তৎকালীন সময়ে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ের পুকুরিয়া গ্রামে এসেছিলেন বিএনপি জামায়াতের তান্ডব দেখতে। জড়িয়ে ধরেছিলেন আওয়ামীলীগ কর্মী মোফাজ্জল ও তাঁর মা আম্বিয়াকে। সেই মোফাজ্জল ও তাঁর ভাই তফাজ্জল বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকারের আমলে স্থানীয় সংসদ সদস্য ফাহমী গোলন্দাজ বাবেলের রোষানলে পড়ে বাড়ি ছেড়ে থাকতে হয়। মোফাজ্জল ও তফাজ্জলের বিরুদ্ধে দেওয়া হয়েছে মিথ্যা মামলাও। সরেজমিনে গিয়ে কৃষক মোফাজ্জলের ভাই তফাজ্জলের সাথে কথা হয়। বললেন, আমরা বিএনপি জামায়াতের নির্যাতনের শিকার। বর্তমানে আমাদের ওপর অত্যাচার নির্যাতন চলছে। বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে থাকতে হয়। তবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাদেরকে অনুদান দিয়েছেন। শুধু মোফাজ্জল নয়, এরকম অসংখ্য আওয়ামীলীগ নেতা কর্মীরা স্থানীয় এমপির ক্যাডার বাহিনীর ভয়ে বাড়ি ছেড়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন।নিগুয়ারি ইউনিয়নের ভূষভুশিয়া গ্রামের শহীদ পরিবারের সন্তান আওয়ামী লীগ কর্মী সাইদুর রহমান রতন। তাঁর মাছের খামার জোর করে শুধু দখল নয়, আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দিয়েছে মাছের গোডাউন। পুড়িয়ে দিয়েছে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানও। স্থানীয় সংসদ সদস্য ফাহমী গোলন্দাজ বাবেলের পক্ষের লোকজন এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে ভূক্তভোগী রতনের অভিযোগ। বর্তমানে ক্ষতিগ্রস্থ রতনও বাড়ি ছাড়া। সাইদুর রহমান রতন বলেন, প্রকাশ্যে তাঁর মাছের খামারে এলাকার কুখ্যাত ডাকাত বাহিনী এ ঘটনা করে। তারা সবাই এমপির পিএস মাসুদ হোসেন সোহেলের লোক বলে পরিচিত। উপজেলা যুবলীগের সাবেক যুগ্ন আহবায়ক শেখ ফরহাদ তাঁর পুরো পরিবার বাড়ি ছেড়ে ৪ বছর ধরে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। পৌর শহরে তাঁর বসতবাড়ি দখল করে রেখেছে স্থানীয় সংসদ সদস্য ফাহমী গোলন্দাজ বাবেলের ক্যাডাররা। বাড়ি ছাড়া থাকার অভিযোগ অসংখ্য। উপজেলার পুড়াবাড়িয়া গ্রামের আহাদ খান তাঁর পুরো পরিবার বাড়ি ছাড়া। ২০০১ সালে নৌকায় ভোট দেওয়ার অপরাধে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আহাদ খানের আঙ্গুল কেটে নেয় বিএনপির সন্ত্রাসীরা। নির্যাতিত আহাদ খানের অভিযোগ, বিএনপি জামায়াতের নির্যাতনকে হান মানিয়েছে বর্তমান সংসদ সদস্য ফাহমী গোলন্দাজ বাবেলের সন্ত্রাসীরা। বর্তমানেও তাকে মেরে ফেলতে প্রকাশে ফেইসবুকের মাধ্যমে হুমকি দেওয়া হচ্ছে। শুধু আওয়ামী লীগ নেতা কর্মী বাড়ি ছাড়া নয়, অসংখ্য দলীয় নেতা কর্মীর ওপর হামলা ও বাড়িঘর ভাংচুরের ঘটনা প্রতিনিয়ত ঘটছে। উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক দুলাল উদ্দিন আকন্দের ওপর হামলা করা হয়। গত ইউপি নির্বাচনের সময় দুলাল উদ্দিন আকন্দকে কুপিয়ে আহত করে সন্ত্রাসীরা। স্থানীয় এমপির রোষানলে পড়ে হামলা হামলা ও বাড়ি ছাড়া থাকা এসব অসংখ্য অভিযোগ প্রধানমন্ত্রী পর্যন্তও অভিযোগ দেওয়া হয়েছে বলে সূত্রে জানা গেছে। সম্প্রতি নিগুয়ারি এলাকার ৬০ বছরের বৃদ্ধ নৌকার সমর্থক ইনছান বেপারীকে কুপিয়ে আহত করে। এ বৃদ্ধ ইনছান বেপারীর অপরাধ তাঁর ছেলে রুবেল ছাত্রলীগ কর্মী। সাবেক সংসদ সদস্য ক্যাপ্টেন (অব:) গিয়াস উদ্দিন আহমেদের পক্ষে কাজ করেন। গত ২৪ মার্চ সাবেক সংসদ সদস্য ক্যাপ্টন (অব:) গিয়াস উদ্দিন আহমেদ এলাকায় গণসংযোগে বের হলে এমপি বাবেল গোলন্দাজের সমর্থিত টাঙ্গাব ইউপি চেয়ারম্যান মোফাজ্জল হোসেন সাগরের নেতৃত্বে দত্তেরবাজার এলাকায় হামলা চালায়। এসময় সন্ত্রাসীদের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে টাঙ্গাব ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ নেতা মজিবুরসহ ৫ জন আহত হয়। এমপির রোষানলে পড়ে উপজেলার বাড়া এলাকার ব্যবসায়ী আলম তাঁর সর্বস্ব হারিয়েছেন। তাঁর দোকানে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেওয়া হয়। উপজেলার পাঁচবাগ এলাকার আওয়ামী লীগ কর্মী শহীদের বিদেশ প্রবাসী সন্তান সবুজ মিয়াকে প্রকাশ্যে এমপি বাবেলের লোকজন কুপিয়ে নদে ফেলে দেয়। বর্তমানে এ হত্যা মামলার আসামীরা প্রবাশ্যে এমপি ও তাঁর পিএস মাসুদ হোসেন সোহেলের সাথে চলাফেরা করে বলে নিহত প্রবাসী সবুজের পরিবারের অভিযোগ। উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক দুলাল উদ্দিন আকন্দকে বিগত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের সময় কুপিয়ে আহত করে ক্যাডাররা। অভিযোগ রয়েছে, স্থানীয় সংসদ সদস্য ফাহমী গোলন্দাজ বাবেলের ক্যাডারদের ভয়ে আওয়ামী লীগের অসংখ্য নেতা কর্মীরা স্ব পরিবারে বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। এমপির ক্যাডারদের হাতে নির্যাতিত দলীয় নেতা কর্মীরা অনেকেই ভয়ে প্রকাশ্যে কিছু বলতে সাহস পায় না। গত ১৫ আগশ্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৩ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবসে উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি খোকন আহম্মেদের মশাখালী বাড়িতে কাঙ্গালী ভোজে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে। এসময় জাতির জনকের ছবি ভাংচুর করা হয়। স্থানীয় সংসদ সদস্য ফাহমী গোলন্দাজ বাবেলের সন্ত্রাসীরা প্রকাশ্যে এই হামলা ও ভাংচুর চালায়। এর আগে ১৫ আগষ্ট জাতীয় শোক দিবস প্রস্তুুুতির সময় উপজেলার চংবিরই এলাকার আওয়ামী লীগ নেতা ফারুক আহমেদকে কুপিয়ে আহত করে পঙ্গু করে দেয় এমপির ক্যাডাররা। হামলা মামলায় জর্জরিত এ অঞ্চলের আওয়ামী লীগ ও তাঁর সহযোগী সংগঠনের নেতা কর্মী ও সমর্থকরা।
চলবে……..

Comments are closed.